জানুয়ারিতেই করোনার টিকা পেতে পারে বাংলাদেশ

জানুয়ারির শেষ দিকে অথবা তার আগেই করোনার টিকা পাওয়ার আশা করছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন চলতি মাসেই করোনা টিকার জন্য ভারতের সেরাম ইন্সিটিউটে টাকা পাঠানো হবে।আমরা সেরামের কাছে আরও বেশী করোনার টিকার ডোজ চেয়েছিলাম কিন্তু সেরাম ইন্সিটিউট কোনভাবেই তিন কোটি ডোজের বেশী টিকা দিতে রাজি হয়নি।আমরা আবারও তাঁদের সাথে আলোচনা করেছি তাঁদের মনভাবে মনে হচ্ছে তাঁরা কিছু পরিমান করোনার টিকা বেশী দিতে পারে।

গতকাল শনিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা জানান স্বাস্থ্য মন্ত্রী।এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে প্রশ্ন করা হয় যে WHO এর অনুমতি ছাড়াই করোনার টিকা নিয়েআসা হবে কিনা?এই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন,যুক্তরাজ্য অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকার অনুমোদন দিয়েছে এবং এই টিকা যুক্তরাজ্যে প্রয়োগও শুরু হয়েছে।এছারা এই টিকা ভারতও অনুমোদন দিয়েছে।আর আমাদের ঔষধ নীতি অনুসারে WHO এবং সাতটি দেশ এবং প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন থাকলেই সেই ওষুধ আমাদের দেশে আমরা ব্যাবহার করতে পারব।তারপরও এই টিকা বাংলাদেশে আসার পর ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর থেকে যাচায় বাছাই এবং অনুমোদন এর পরেই আমরা প্রয়োগ শুরু করব।

এই সময় স্বাস্থ্য মন্ত্রী আরও বলেন, দেশের সকল মানুষকে টিকার আওতায় আনতে সরকার যথাসাধ্য চেষ্টা চালাচ্ছে আর এই ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নীতিগত সম্মতি প্রদান করেছেন।এর পরেই সেরাম ইন্সিটিউট সহ আরও কিছু টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে।একটি চায়না টিকা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানও আমাদের টিকা দেওয়ার ব্যাপারে জানিয়েছেন এবং তাঁরা এই টিকা আমাদের দেশেই উৎপাদন করতে চান।এর বাহিরেও আরও অনেক টিকা সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে আলোচনা চলছে বলেন জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন,দেশে বর্তমানে ১৮ বছরের নিচে জনসংখা ৩৭ ভাগ,প্রসূতি রয়েছে ৩০ লাখের মত এবং এই মুহূর্তে দেশের বাহিরে অবস্থান করছেন প্রায় ১ কোটি মানুষ।সব মিলিয়ে প্রায় ছয় কোটি মানুষের এই টিকার প্রয়োজন হবে না।তাহলে আমাদের টিকা নেওয়ার মানুষ থাকবে ১০ কোটি।সেরাম ইন্সিটিউট থেকে পাওয়া যাবে ৩ কোটি এবং কোভ্যাপের মাধ্যমে আমরা পাব ছয় কোটি আশি লাখ টিকা।এই টিকা দিয়ে ৫ কোটি মানুষের টিকার চাহিদা পূর্ণ করা যাবে।আর যারা বাকী থাকবে তাঁদের টিকা পাওয়া নিয়ে সরকার কাজ করছে যাতে আমরা বাকী টিকা গুলোও দ্রুত পেতে পারি।সুতরাং টিকা প্রাপ্তি নিয়ে আমাদের চিন্তা করার কোন কারন নাই।এই সময় স্বাস্থ্য মন্ত্রী সবাই কে স্বাস্থ্যবিধি এবং মাস্ক পরিধান করার আহবান জানান।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *